Home / আন্তর্জাতিক / ভালুকায় ওসির মানবতায় পিতৃ পরিচয়হীন নবজাতক শিশু ও মা সুস্থ্য আছেন

ভালুকায় ওসির মানবতায় পিতৃ পরিচয়হীন নবজাতক শিশু ও মা সুস্থ্য আছেন

আসাদুজ্জামান জামাল:

ভালুকা মডেল থানার ওসি মাইন উদ্দিনের দৃষ্টান্ত মানবতায় পিতৃ পরিচয়হীন নবজাতক শিশু ও মা বর্তমানে সুস্থ্য আছেন। ২জেুন (রবিবার) হাসপাতালে গিয়ে দেখাযায় মানসিক ভারসাম্যহীন মা আর আদরের শিমুটিকে কোলে নিয়ে আদর করছেন এবং অসহায়ের মতো অপলক দৃষ্টিতে বার বার শিশুটির দিকে তাকাচ্ছেন । কি জানি একটা বার বার বলতে চাচ্ছেন। তখন আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম আপনার নাম কি,বাড়ী কোথায়? জবাব দিলেন রেহেনা,বাড়ী সিংগাইর। বাচ্চার বাবার নাম জানতে চাইলাম তখন অশ্রুসিক্ত চোখে তাকিয়ে রইলো কিছুক্ষন, পরে হাত নেড়ে জবার দিল জানিনা। ভালুকা কি করে এলো এটাও সে বলতে পারে না। পরে এক নার্সকে মা এবং শিশুর বর্তমানে কি অবস্থা নার্স জানালেন অবস্থায় এখন ভাল। ওসি স্যার কালও এসেছিল। বার বার খোজ খবর নিচ্ছেন,যখন যা লাগছে ওসি স্যারই ব্যবস্থা করছেন। ‍

উল্লেখ্য গত শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার বহুলী গ্রামের সোহাগের বাড়ির বাহিরের দিকের বারান্দায় মানসিক ভারসাম্যহীন (৩৫) এক নারী প্রসবের ব্যাথায় ছটফট করতে থাকেন। ওই নারীর ডাক-চিৎকারে বিলকিস বেগম নামের এক মহিলা টের পান। পরে কিছুক্ষণের মধ্যেই বিলকিছ বেগমের হাতেই ওই মানসিক ভারসাম্যহীন নারী ফুটফুটে এক ছেলে নবজাতক প্রসব করেন।

এরপর ওই নারীর নাম-পরিচয় জানতে চাওয়া হলে তিনি কোন প্রশ্নের উত্তর না দিলে ও তাঁর আচরনে স্থানীয় মানসিক ভারসাম্যহীন বলে চিহ্নত করে ।
পরে এই ঘটনাটি ভালুকা মডেল থানায় জানান স্থানীয়রা । পরে থানার ওসি (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম ওই নারী ও নবজাতককে উদ্ধারের জন্য ভালুকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কাছে একজন চিকিৎসকসহ অ্যাম্বুলেন্সের সহযোগিতা চান। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ইউএনও কে জানান হাসপাতালের একমাত্র অ্যাম্বুলেন্সটি নষ্ট ।

রাত ১০ টার দিকে তাসলিমা বেগম নামের ওই স্থানীয় মহিলা আবার মোঠো ফোনে ওসি (তদন্ত) মাজহারুল ইসলামকে জানান, প্রসবের পর ওই নারীর ব্যাপক রক্ত ক্ষরণ হচ্ছে নবজাতকও তেমন নরাচড়া করছে না।
ওসি (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম থানা অফিসার ইনচার্জ মাইন উদ্দিনের দিক দিক নির্দেশনায় একটি নোয়া গাড়ি ভাড়া করে মধ্য রাতেই নবজাতকসহ মাকে উদ্ধার করে ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে ওই নারী ও নবজাতকের খোঁজ নিতে রাতেই হাসপাতালে ছুটে যান ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মাইন উদ্দিন। ওই নারী ও নবজাতকের সুস্থ হওয়ার আগ পর্যন্ত চিকিৎসাসহ সব ধরনের ব্যয়ভার বহন করবেন বলে জানান ওসি মাইন উদ্দিন।

ওসি আরও জানান নাম-ঠিকানা কিছুই জানা যায়নি। নারী ও নবজাতকের সেবার জন্য একজন আয়া নিযুক্ত রাখা হয়েছে। আমরা নবজাতকের পিতাকে খোঁজে বের করতে চেষ্টা করবো। এ ঘটনায় এলাকায় ও গণমাধ্যমে ব্যপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

Check Also

ভালুকায় পুলিশের সাড়াশি অভিযানে আন্ত:জেলা গরুচোর দলের ৬ সদস্য গ্রেফতার

আসাদুজ্জামান জামাল: ময়মনসিংহের ভালুকা মডেল থানা পুলিশের সাড়াশি অভিযানে বিভিন্ন জায়গা থেকে ৪টি গরু সহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *